আন্জুমানের উদ্যোগে ঢাকা মিরপুরে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

সিয়াম সাধনা বান্দার ক্বলবের কু-প্রবৃত্তির ইচ্ছাকে অপসারণ করে অভ্যন্তরীণ শক্তিকে আলোকিত করে -আন্জুমানের উদ্যোগে ঢাকা মিরপুরে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিলে
মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)

গত ৫ আগষ্ট ২০১২ইং, রবিবার আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে ঢাকার মিরপুর-১-এ অবস্থিত কেন্দ্রীয় খানক্বা শরীফে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন দরবারে গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারীর সাজ্জাদানশীন ও মোন্তাজেম, আন্জুমান কেন্দ্রীয় সভাপতি, রাহনুমায়ে শরীয়ত ও ত্বরীক্বত, হযরতুল্হাজ্ব মাওলানা শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.)। তিনি বলেন আল্লাহর বিধান রোজা পালনের মাধ্যমে তাকওয়া অবলম্বন করে বান্দা মুত্তাক্বী হতে পারে। সিয়াম সাধনা বান্দার ক্বলবের কু-প্রবিত্তির ইচ্ছাকে অপসারণ করে অভ্যন্তরীণ শক্তিকে আলোকিত করে বলে তিনি উল্লেখ করেন। মাহফিলে আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন- খলিফায়ে গাউছুল আ’যম মাওলানা শাহ মুহাম্মদ রুহুল আমিন ভূইয়া, খলিফা শাহ মুহাম্মদ আবদুল আজিজ, খলিফা মুহাম্মদ আফসার উদ্দিন, খলিফা হাজী মুহাম্মদ মাসুদ মিয়া, খলিফা আব্দুল মোতালেব মাষ্টার প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন- খাদেম মুহাম্মদ মোহসিন (মহন) মাইজভান্ডারী, খাদেম মুহাম্মদ দুলাল মাইজভান্ডারী, খলিফা শাহ্ মুহাম্মদ ফখরুল আলম মাইজভান্ডারী। পরে মিলাদ-কিয়াম শেষে বিশ্ব শান্তির সংহতি ও সর্ব মানবতার কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মুনাজাত পরিচালনা করেন দরবারে গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারীর সাজ্জাদানশীন মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)।

Posted in Uncategorized | Comments Off on আন্জুমানের উদ্যোগে ঢাকা মিরপুরে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

আন্জুমানের উদ্যোগে ঢাকা মিরপুর-১, কেন্দ্রীয় খানক্বা শরীফে গাউছুল আ’যম সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানীর (ক.ছি.আ.) চন্দ্র বার্ষিকী ওরশ শরীফ পালিত-

আন্জুমানের উদ্যোগে ঢাকা মিরপুর-১, কেন্দ্রীয় খানক্বা শরীফে গাউছুল আ’যম সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানীর (ক.ছি.আ.) চন্দ্র বার্ষিকী ওরশ শরীফ পালিত-

মুরর্শিদে বরহক আল¬ামা শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.) ছিলেন বিশ্ব সুন্নীয়তের দিকপাল। তাঁরই আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের পথ ও মতে বিশ্বাসী হয়ে হেদায়তে প্রতিষ্ঠিত আছেন লক্ষ লক্ষ মানুষ। এ মহান মনিষী তাঁর আধ্যাত্মিক ক্ষমতার প্রভাবে জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকলকে সহজেই আকৃষ্ট করতে পারতেন। আরো বলেন মুরর্শিদ কেবলা সুন্নীয়ত ও ত্বরীক্বায়ে মাইজভান্ডারীয়াকে জাতি সংঘ সহ বিশ্বব্যাপী পরিচিত করে একটি সু-প্রতিষ্ঠিত ভিত্তির উপর দাঁড় করিয়ে দিয়ে গেছেন। আমরা তাঁর পদাংক অনুসরণের মাধ্যমে গাউছুল আ’যম হযরত আহমদ উল¬াহ (ক.) ও গাউছুল আ’যম বাবাভান্ডারী (ক.) সূচিত মাইজভান্ডারী ত্বরীক্বার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী সুন্নীয়তকে আরো শক্তিশালী ও বেগবান করা সম্ভব উলে¬খ করে তিনি মাইজভান্ডারী ত্বরীক্বার বর্তমান যুগের সকল পীর মাশায়েখ ও সুন্নীমতাদর্শে বিশ্বাসী সকল আলেম ওলামাকে বাবা মইনুদ্দীনের আদর্শ অনুসরণ করে ঐক্যের প¬াট ফরমে আশার আহ্বান জানান। গত ৬ আগষ্ট ২০১২ ঈসাব্দ, সোমবার ঢাকা মিরপুর-১, কেন্দ্রীয় খানক্বা শরীফে আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার উদ্যোগে আয়োজিত ত্বরীক্বায়ে মাইজভান্ডারীয়ার দিকপাল ইমামে আহলে সুন্নাত, শায়খুল ইসলাম ও সানীয়ে মাওলায়ে রহমান, হাজীয়ুল হেরমাইন, হুজুর গাউছুল আ’যম আল¬ামা শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভান্ডারী (ক.ছি.আ.) এর চন্দ্র বার্ষিকী ওরশ শরীফে সভাপতির বক্তব্যে আন্জুমান কেন্দ্রীয় সভাপতি, মাইজভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.) উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। মাহিফলে মইন বাবার জীবনাদর্শের উপর আলোচনায় আরো অংশ গ্রহণ করেন- খলিফায়ে গাউছুল আ’যম মোনাজেরে আহলে সুন্নাত আল্হাজ্ব হযরত মাওলানা নূরুল ইসলাম জামালপুরী, খলিফায়ে গাউছুল আ’যম আলহাজ্ব মাওলানা রুহুল আমিন ভূইয়া। উপস্থিত ছিলেন খলিফা আব্দুল হাই, খলিফা মিনহাজ উদ্দীন, খলিফা এ্যাডভোকেট সেলিম, খলিফা নাজিম উদ্দীন, খলিফা শাহজান স্বর্ণকার, খলিফা ডাঃ আফসার উদ্দীন, খলিফা আবদুল মালেক, খলিফা হাজী মুহাম্মদ মাসুদ মিয়া, খলিফা শাহজান, খলিফা আবদুল মোতালেব মাষ্টার, খলিফা হাজী আবদুল মালেক, খলিফা আবদুল মান্নান, খলিফা মুহাম্মদ বাবুল, খলিফা চাঁন মিয়া, খলিফা বাদশা মিয়া, খলিফা সাহবুদ্দীন বাচ্চু, খলিফা নাসির উদ্দীন নাসু, খলিফা রাশেদ ভূঁইয়া, খলিফা আবদুর রহমান, আবদুল জলিল মেম্বার প্রমুখ।
পরে সালাত-সালাম শেষে বিশ্ব মানবতার মুক্তি ও কল্যাণ কামনা করে আখেরী মুনাজাত পরিচালনা করেন দরবারে গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারীর সাজ্জাদানশীন মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.)।

এছাড়া আন্জুমানের উদ্যোগে দেশের বিভিন্ন স্থানে সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী আল্-মাইজভান্ডারী (ক.ছি.আ.) এর চন্দ্র বার্ষিকী ওরশ শরীফ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সুফি দেস্ক্

Posted in Uncategorized | Comments Off on আন্জুমানের উদ্যোগে ঢাকা মিরপুর-১, কেন্দ্রীয় খানক্বা শরীফে গাউছুল আ’যম সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানীর (ক.ছি.আ.) চন্দ্র বার্ষিকী ওরশ শরীফ পালিত-

আন্জুমানের উদ্যোগে কুমিল¬া গর্জন খোলা খানক্বা শরীফে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত-

আন্জুমানের উদ্যোগে কুমিল¬া গর্জন খোলা খানক্বা শরীফে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত-

গত ৮ আগষ্ট-২০১২ ঈসাব্দ, বুধবার আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়া কুমিল¬া জেলা শাখার উদ্যোগে কুমিল¬া গর্জন খোলায় অবস্থিত খানক্বায়ে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ায় রমজানের তৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মাহফিলে প্রধান অতিথী ছিলেন আন্জুমান কেন্দ্রীয় সভাপতি, দরবারে গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারীর সাজ্জাদানশীন, রাহনুমায়ে শরীয়ত ও ত্বরীক্বত, শাহ্জাদায়ে গাউছুল আ’যম আল্হাজ্ব শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.)। রমজানের তাৎপর্যের উপর আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন আন্জুমান কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক খলিফায়ে গাউছুল আ’যম আলহাজ্ব মুহাম্মদ আলমগীর খান মাইজভান্ডারী, মাওলানা নজরুল ইসলাম সাদকপুরী, মাওলানা শেখ সাদী মুহাম্মদ আবদুল¬াহ, গাউছে পাক জামে মসজিদের খতীব মাওলানা হাফেজ আমিন অকবরী, কাশারপট্টি জামে মসজিদের খতীব মাওলানা তাজুল ইসলাম, গর্জন খোলা জামে মসজিদের খতীব মাওলানা ওমর ফারুক, মাওলানা আবদুস সাত্তার মাইজভান্ডারী প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন খলিফা শাহ মুহাম্মদ নাসির উদ্দীন, খলিফা আবদুর রহমান, খলিফা ফিরোজ, খলিফা রেহান উদ্দীন, খলিফা কামাল উদ্দীন, খলিফা ডাঃ সালাহ উদ্দীন সেলিম সিদ্দীক পুরী, সাংবাদিক সিদ্দীক মামুন, খলিফা আক্তার হোসেন, মানিক খোন্দকার প্রমুখ ছাড়াও দেশ বরেণ্য ওলামা মাশায়েখ, শিক্ষক সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবিগণ উপস্থিত ছিলেন। মাহফিল শেষে দেশ জাতি ও মুসলিম মিল¬াতের কল্যাণ কামনা করে মুনাজাত পরিচালনা করেন, দরবারে গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারীর সাজ্জাদানশীন মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)।

Posted in Uncategorized | Comments Off on আন্জুমানের উদ্যোগে কুমিল¬া গর্জন খোলা খানক্বা শরীফে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত-

শোক সংবাদ

শোক সংবাদ
নূর-এ-রহমান সম্পাদনা সহকারী মূফতী আল¬ামা ছালে সুফিয়ান ফরহাদাবাদী মাইজভান্ডারীর শ্রদ্ধেয় পিতা আলহাজ্ব সূফী আবু সিদ্দীক শাহ নকশবন্দী মুজাদ্দেদী গত ২৫ বৈশাখ ১৪১৯ বাংলা, ১৭ই জমাদিউসসানী ১৪৩৩ হিজরী, ৮ই মে-২০১২ ঈসাব্দ সোমবার শেষ রাত্র ৩.১৫ মিনিটে চট্টগ্রাম শহরে ওফাত বরণ করেন ইন্নালিল¬াহি…রাজেউন। মরহুমের জানাজা ৯ মে মঙ্গলবার তাঁরই তৃতীয় পুত্র মুফতী মাওলানা ছালে সুফিয়ানের ইমামতিতে বাঁশখালীর মনকির চর মরহুমের নিজবাড়ী সংলগ্ন তাঁরই প্রতিষ্ঠিত প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে পারিবারিক মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে দাপন করা হয়। জানাজা নামাজে উপস্থিত ছিলেন বাঁশখালীর সাবেক এমপি সুলতানুল কবিরের ছোট ভাই লিয়াকত (কবির), মনকিরচর ইউ, পি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ মোজাম্মেল, সাবেক চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন, বাঁশখালী উপজেলা চেয়ারম্যান……………। ফরহাদাবাদ দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন মুফতী মাওলানা সৈয়দ মোজাম্মেল হক, নায়েবে সাজ্জাদানশীন এডভোকেট মাওলানা মুহাম্মদ মোকাম্মেল হক, আমির ভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন মেহরাজুল আলম আমিরী, মাওলানা আবু বকর খান মাইজভান্ডারী সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। মরহুম আবু সিদ্দীক শাহ ৫ পুত্র ও ৬ মেয়ে সহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে নূর-এ-রহমান মাইজভান্ডারী লিখক পর্ষদের পক্ষে গোলাম মুহাম্মদ খান সিরাজী ও নূর-এ-রহমান কর্তৃপক্ষ এক শোক বার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

Posted in Uncategorized | Comments Off on শোক সংবাদ

হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.) এর ১ম বার্ষিক ওরশ ১৭ আগষ্ট’২০১২ শুক্রবার মাইজভান্ডার শরীফে পালিত হয়

ইসলামের মানবতাবাদী দর্শন প্রচারে ও মানব সেবায় শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.)’র ত্যাগ ও অবদান যুগে যুগে স্মরণীয় হয়ে থাকবে
-শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)
বিশ্বনন্দিত আধ্যাত্মিক সূফী সাধক ত্বরীক্বায়ে মাইজভান্ডারীয়ার দিকপাল, হিজরী পঞ্চদশ শতাব্দীর মুজাদ্দিদ, শায়খুল ইসলাম, হযরত মাওলানা শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.) এর ১ম বার্ষিক ওরশ আজ ১৭ আগষ্ট’২০১২ শুক্রবার, মাইজভান্ডার শরীফে হাজার হাজার ভক্ত-জনতার অংশ গ্রহণে আখেরী মুনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে। হযরত শাহ্সুফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.)’র বার্ষিক ওরশ শরীফে যোগ দিতে সারা দেশ থেকে বিভিন্ন পরিবহনে আসা হাজার হাজার ভক্ত-জনতার উপস্থিতিতে মাইজভান্ডার শরীফে আধ্যাত্মিক আবহ ছড়িয়ে পড়ে। বৃহস্পতিবার থেকেই মাইজভান্ডার শরীফ অভিমুখে জনস্রোত নামে। হযরত শাহসূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছ্.িআ.)’র রওজা শরীফকে ঘিরে জিকির, মাইজভান্ডারী মরমী সঙ্গীত, ছেমা’, মিলাদ, মাজার জিয়ারত ও দরূদ-মুনাজাতে শামিল হন ভক্ত-আশেকরা। এ সময় পুরো দরবার এলকায় ভাবগম্ভীর পরিবেশ সৃষ্টি হয়।
আজ ১৭ আগষ্ট’২০১২ শুক্রবার ফজরের নামাজের পর হযরত শাহসূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.)’র রওজা শরীফে গিলাফ চড়ানোর মধ্য দিয়ে ওরশ শরীফের কর্মসূচি শুরু হয়। ওরশ মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন মাইজভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন ও মোন্তাজেম, আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার সভাপতি, আওলাদে গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারী হযরত শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জ্.িআ.)। তিনি বলেন, মাইজভান্ডার দরবার শরীফ বিশ্ব মানবতার জন্য আল্লাহর করুণা লাভের একটি আধ্যাত্মিক কেন্দ্র। দল-মত-শ্রেণী ও গোষ্ঠীগত পার্থক্য ভেদাভেদের উর্ধ্বে ওঠে মাইজভান্ডারী মহাত্মারা সর্বস্তরের মানুষকে তাওহিদ, রেসালত ও বেলায়তের শাশ্বত পথের দিকে আহবান করেন। অসাম্প্রদায়িক চেতনা লালন করে সর্বজনীন মানব প্রেমের দীক্ষা দেয়াই মাইজভান্ডার শরীফের মহাত্মাদের জীবন দর্শন। তিনি আরো বলেন, সারা বিশ্বের আনাচে-কানাচে শান্তি, গণকল্যান ও ইনসাফ ভিত্তিক মাইজভান্ডারী দর্শন সর্বোত্তমভাবে তুলে ধরেছিলেন শায়খুল ইসলাম শাহূসূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.)। ইসলামের মানবতাবাদী দর্শন প্রচারে আজীবন নিজেকে নিবেদিত রাখেন এ মহান সূফী ব্যক্তিত্ব। তাঁর ত্যাগ ও অবদান যুগে যুগে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। অশান্ত-দ্বন্দ্বমুখর আজকের দুঃসহ পরিস্থিতি থেকে নাজাত পেতে হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.)’র প্রদর্শিত শান্তি ও মানবিক সম্প্রীতির পথে সবাইকে ফিরে আসার আহ্বান জানান আল্লামা হাসানী। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথী ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র আল্হাজ্ব এম. মন্জুর আলম, শাহ্জাদা সৈয়দ ফরাদ উদ্দীন আহমদ, শাহ্জাদা সৈয়দ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন, শাহ্জাদা সৈয়দ হাসনাইন-এ-মইনুদ্দীন।
হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভান্ডারী (ক.ছি.আ.)’র জীবন দর্শনের উপর আলোচনায় অংশ নেন পীরানে পীর (রাদ্বি.)’র দরবার শরীফের প্রতিনিধি ও খাদেম সৈয়দ আবদুল্লাহ আবদুল কাদের, আন্জুমান সাধারণ সম্পাদক খলিফা শাহ্ মুহাম্মদ আলমগীর খান, সোবহানীয়া আলীয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা হারুনুর রশীদ, কালুশাহ্ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আনোয়ারুল ইসলাম খান, এডভোকেট ওয়াজীউদ্দীন মিয়া, রহমানিয়া মইনীয়া র্দসে নেজামী মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা গোলাম মুহাম্মদ খান সিরাজী, মুফতী সালেহ সুফিয়ান ফরহাদাবাদী, মাওলানা বাকের আনসারী, মাওলানা রুহুল আমীন ভূঁইয়া মাইজভান্ডারী, মাওলানা শেখ সাদী আব্দুল্লাহ, সিঙ্গাপুরের খলিফা শাহ্ মুহাম্মদ মোতাহের, আরব আমিরাত আন্জুমান সভাপতি খলিফা আব্দুল কুদ্দুস প্রমুখ।
ওরশ শরীফে ইরাকের বাগদাদ শরীফের হযরত গাউছুল আ’যম সৈয়দ আবদুল কাদের জিলানী (রাদ্বি.) এর আওলাদ ও দরবার শরীফের প্রতিনিধি খাদেম আবদুল্লাহ আবদুল কাদের, দরবার শরীফের মসজিদের ইমাম ফরিদ সোহানী এবং মিশর থেকে আগত আবদুর রহিম হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.)’র রওজা শরীফে গিলাফ চড়ানোর জন্য উপহার হিসেবে পীরানে পীর (রাদ্বি.)’র রওজা শরীফের গিলাফ শরীফ মাইজভান্ডার শরীফে হযরত সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)’র নিকট হস্তান্তর করেন। এ সময় হযরত সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.) বাগদাদ থেকে আগত পীরানে পীর (রাদ্বি.)’র দরবারের প্রতিনিধি দলকে গাউছুল আ’যম আবদুল কাদের জিলানী (রাদ্বি.)’র রওজা মোবারকের চড়ানোর জন্য মাইজভান্ডার দরবার শরীফের পক্ষ থেকে একটি গিলাফ উপহার প্রদান করেন। এছাড়াও মালয়েশীয়া, ভারত, সিঙ্গাপুর, দুবাই, মিশর ও ইরাকসহ বিভিন্ন দেশ থেকে হজুর কেবলা (ক.ছি.আ.)’র ভক্ত ও বিশিষ্ট ব্যক্তিরা ওরশ শরীফে অংশ গ্রহণ করেন।
মাহফিলে বিশেষ অতিথী বাগদাদ গাউছুল আ’যম দরবার শরীফের আবদুল্লাহ আবদুল কাদের বলেন, বিশ্বব্যাপী মাইজভান্ডারী ত্বরীক্বার প্রচার-প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন শাহূসূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী আল্-মাইজভান্ডারী (ক.ছি.আ.)। তাঁকে হারিয়ে আজ আমরা শোকে স্তব্ধ হয়ে পড়েছি। আল্লাহ্পাক যেন সবাইকে তাঁর পদাঙ্ক অনুসরণের তওফিক দান করেন।
রাতে সালাত-সালাম শেষে অশান্তি-দুর্যোগ থেকে পরিত্রাণ, দেশের অব্যাহত শান্তি-অগ্রগতি এবং বিশ্বমানবতার কল্যাণ কামনায় আখেরী মুনাজাত পরিচালনা করেন হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.)।
শান্তিপূর্ণভাবে ওরশ উদ্যাপনে ফটিকছড়ি উপজেলা প্রশাসন, থানা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সরকারী সংস্থার পক্ষ থেকে নানা পদক্ষেপ নেয়ায় আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার পক্ষ হতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানান হয়।

সুফি দেস্ক্
তারিখ ঃ ১৭/০৮/২০১২ ইং

Posted in বাবা সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী | Comments Off on হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.ছি.আ.) এর ১ম বার্ষিক ওরশ ১৭ আগষ্ট’২০১২ শুক্রবার মাইজভান্ডার শরীফে পালিত হয়

১২-২০ জুন ২০১২ ইং পর্যন্ত “সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী ক্যালিগ্রাফী ফাউন্ডেশন” এর উদ্যোগে “নলিনী কান্ত ভট্ট্রশালী গ্যালারী” জাতীয় জাদুঘর, শাহবাগ ঢাকায় ক্যালিগ্রাফী প্রদর্শনী হয়।

ক্যালিগ্রাফী আল্লাহর কালামের বি¯তৃত সৈৗর্ন্দয্য-
সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী

১২ জুন ২০১২ ইং মঙ্গলবার বিকাল ০৩ টায় “নলিনী কান্ত ভট্ট্রশালী গ্যালারী” জাতীয় জাদুঘর, শাহবাগ ঢাকায় ১২-২০ জুন ২০১২ ইং পর্যন্ত “সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী ক্যালিগ্রাফী ফাউন্ডেশন” এর উদ্যোগে ক্যালিগ্রাফী প্রদর্শনীর এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আওলাদে রাসূল (দঃ) সাজ্জাদানশীন দরবার -এ গাউছূল আজম মাইজভান্ডারী হযরতুলহাজ্ব শাহসূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল্ হোসাইনী মাইজভান্ডারী (মাঃজিঃআঃ)।

অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ও প্রধান অতিথী হিসেবে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পরিবেশ ও বন মন্ত্রী ডঃ হাছান মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি তাঁর উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন- আমি এই ক্যালিগ্রাফী ফাউন্ডেশনের উত্তোরোত্তর সাফল্য কামনা করছি পাশাপাশি আমার আন্তরিক সহযোগিতা অব্যহত থাকবে।

সম্মানিত মেহমান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিধ্যালয়ের অধ্যাপক ডঃ আ ন ম রইছউদ্দীন- ইসলামিক ষ্টাডিজ বিভাগ, ডঃ আনিসুজ্জামান – দর্শন বিভাগ, এ কে এম সাইফুল ইসলাম খান-ফারসী বিভাগ সহ শিল্পপতি, ব্যবসায়ী, শিক্ষানুরাগী, সমাজ সেবকগন।

বিশেষ অতিথীবৃন্দ আলোচনায় অংশ নিয়ে বলেন- পবিত্র ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষ্যে দরবার -এ গাউছূল আজম মাইজভান্ডারীর সংগঠন “সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী ক্যালিগ্রাফী ফাউন্ডেশন” এর উদ্যোগে আযোজিত ক্যালিগ্রাফী প্রদর্শনীর এই আয়োজন সত্যি প্রশংসনীয়।

সভাপতির বক্তব্যে ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী বলেন- দেশের তরুণ সমাজ ও শিক্ষানবিশদের মন ও প্রাণে যখন অপসংস্কৃতি আঘাত করছে তখন মাইজভান্ডারী অংগন থেকে সর্ব প্রথম এ প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনীর আয়োজন করেন শায়খুল ইসলাম, ত্বরীক্বায়ে মাইজভান্ডারীয়ার দিকপাল, আওলাদে রাসূল (দঃ), হুযুর গাউছুল আজম হযরতুল্হাজ্ব আল্লামা শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী মাইজভান্ডারী (কু.ছি.আ.)। ধর্মীয় ভাব গাম্ভির্য্যপূর্ন ইসলামী সংস্কৃতির এ আয়োজন বাস্তবিকই অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে এক নীরব বিল্পব। সুস্থ ও নৈতিক সংস্কৃতির বিকাশ ঘটাতে তাঁর ঐ মহান কর্মসূচীর ধারাবাহিকতা বজায় রাখা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। এই ইসলামী সংস্কৃতি চর্চ্চার আয়োজন নিঃসন্দেহেই ভবিষ্যত প্রজন্মকে সুন্দর ও সার্থক জীবন গঠনে প্রেরণা যোগাবে। এ ধরণের প্রদর্শনী ইসলামী সংস্কৃতি প্রচার ও প্রসারে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।

পরিশেষে বিশ্ব উম্মাহর ঐক্য, সংহতি, শান্তি, মানবতার কল্যান এবং দেশের অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ মোনাজাতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্ত হয়।

Posted in Uncategorized | Comments Off on ১২-২০ জুন ২০১২ ইং পর্যন্ত “সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী ক্যালিগ্রাফী ফাউন্ডেশন” এর উদ্যোগে “নলিনী কান্ত ভট্ট্রশালী গ্যালারী” জাতীয় জাদুঘর, শাহবাগ ঢাকায় ক্যালিগ্রাফী প্রদর্শনী হয়।

০৯ জুন ২০১২ ইং শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ‘সৈয়দ মইনুদ্দিন আহমদ মাইজ ভান্ডারী ক্যালিগ্রাফি ফাউন্ডেশন’ এক ব্যতিক্রমী ক্যালিগ্রাফি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে

‘ক্যালিগ্রাফি’ মুসলিম শিল্পকলার অন্যতম মাধ্যম । ইংরেজি শব্দ ‘calligraphy’ এসেছে গ্রীক শব্দ ‘kalligraphia’ থেকে।

এর অর্থ দাঁড়ায় ‘kallos’ মানে সৌন্দর্য ও ‘graphein’ মানে লেখা। ক্যালিগ্রাফি হচ্ছে মূলত: নান্দনিক হস্তলিখন পদ্ধতি বা সংক্ষেপে লিপিকলা ।

ঐতিহাসিক তথ্যমতে, প্রাচীন মিশরীয় হায়ারোগ্লিফিক্সের নান্দনিক শিলালিপি হচ্ছে ‘ক্যালিগ্রাফি’র প্রাথমিক প্রচেষ্ঠা। ইসলামী লিপিকলার উন্মেষ ও এর প্রসার ঘটেছিল ইসলাম ধর্মের প্রচারের পাশাপাশি। আরবি ভাষায় লিখিত পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল-কোরআনের অনুলিপি তৈরি ও প্রচারের প্রয়োজনেই বিকশিত হয়েছিল ইসলামী লিপিকলা। পরবর্তী সময়ে এই চর্চা ধর্মীয় প্রচারণার সঙ্গে কাঁচ ও মৃৎশিল্প, ধাতুশিল্প, বয়নশিল্প, মুসলিম স্থাপত্য, সিরামিকসহ বিভিন্ন শিল্প মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

অতীতে মুসলিম দেশ হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশে প্রসার ঘটেনি ক্যালিগ্রাফি শিল্পের। দেশের মূলধারার শিল্পচর্চায় যুক্ত হতে পারেনি এই ক্যালিগ্রাফি। তবে আশার কথা হচ্ছে, ধীরে ধীরে এই ক্যালিগ্রাফি চর্চায় এগুচ্ছে বাংলাদেশ। প্রাতিষ্ঠানিক ও ব্যক্তিগত পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশের শিশু-কিশোরদের মধ্যে ক্যালিগ্রাফি প্রতিযোগিতাও হচ্ছে।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজন করা হয় এমনি এক প্রতিযোগিতার। ব্যতিক্রমী এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে ‘সৈয়দ মইনুদ্দিন আহমদ মাইজ ভান্ডারী ক্যালিগ্রাফি ফাউন্ডেশন’।

প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় চার ক্যাটাগরির শিল্পীরা। এরা হচ্ছেন, প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ‘ক’ ক্যাটাগরি, পঞ্চম থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ‘খ’ ক্যাটাগরি, একাদশ থেকে মাস্টার্স পর্যন্ত ‘গ’ ক্যাটাগরি ও ‘ঘ’ ক্যাটাগরিতে বিভিন্ন বয়েসের প্রতিযোগিদের জন্য উন্মূক্ত থাকে।

সৈয়দ মইনুদ্দিন আহমেদ মাইজভান্ডারী ক্যালিগ্রাফি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ সাইফুদ্দিন আহমদ মাইজভান্ডারী প্রতিযোগিতা আয়োজনের নানাদিক তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, ‘ইসলাম পরিপূর্ণতা নিয়েই এসেছে। সুস্থ সংস্কৃতিচর্চাকে সমর্থন করে ইসলাম। ক্যালিগ্রাফি ইসলামী সংস্কৃতির একটি অংশ। এসকল ইসলামিক সংস্কৃতির বিকাশ ঘটলে জঙ্গিবাদের মতো অপসংস্কৃতির হাত হতে আমরা রক্ষা পাবো। পাশ্চাত্য সংস্কৃতির আগ্রাসন থেকেও রক্ষা পাবো আমরা।’

ক্যালিগ্রাফি চর্চা ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত প্রজন্মের জন্য আর্থিক সম্বৃদ্ধি আনায়নের ক্ষেত্রেও ভূমিকা রাখতে পারে উল্লেখ করে সাইফুদ্দিন আহমদ বলেন, আমাদের ছেলেমেয়েদের ক্যালিগ্রাফি বিদেশে বিক্রি হত, যার মধ্যে আমরা বৈদেশিক মুদ্রা আয় করতে পারি। তাছাড়া ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে যারা স্বল্প বেতনে মাদ্রাসা-মসজিদে চাকরি করে জীবিকা নির্বাহ করেন তাদের জন্যও ক্যালিগ্রাফি চর্চা খুবই সহায়ক হতে পারে। এটি অত্যন্ত সম্ভাবনাময় একটি শিল্পমাধ্যম।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের ছেলেমেয়েরা ক্যালিগ্রাফি চর্চায় অত্যন্ত পারদর্শীতা প্রদর্শন করছে। তারা যাতে ইরান, তুরস্ক প্রভৃতি দেশে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক ক্যালিগ্রাফি প্রতিযোগীতায় অংশ নিতে পারে, সেজন্য সৈয়দ মইনুদ্দিন আহমেদ মাইজভান্ডারী ক্যালিগ্রাফি ফাউন্ডেশন সহায়তা দেবে।’

চার ক্যাটগরিতে এই প্রতিযোগিতায় ৫০ জন প্রতিযোগি অংশ নেয়। ১২ জুন থেকে ২০ জুন পর্যন্ত এসব আঁকা ক্যালিগ্রাফি জাতীয় জাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী গ্যালারিতে প্রদর্শিত হবে।

Posted in Uncategorized | Comments Off on ০৯ জুন ২০১২ ইং শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ‘সৈয়দ মইনুদ্দিন আহমদ মাইজ ভান্ডারী ক্যালিগ্রাফি ফাউন্ডেশন’ এক ব্যতিক্রমী ক্যালিগ্রাফি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে

উপ মহাদেশের আধ্যাত্মিক সম্রাট খাজা মইনুদ্দীন চিশ্তী (রহঃ) এর ৮০০তম ওরশ শরীফ উদ্যাপন

উপ মহাদেশের আধ্যাত্মিক সম্রাট খাজা মইনুদ্দীন চিশ্তী (রহঃ) এর জীবনাদর্শ অনুসরণের মধ্যে মানব কল্যাণ নিহিত -শাহ্জাদায়ে গাউছুল আ’যম শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.)।

গতকাল চট্টগ্রাম জমিয়তুল ফালাহ কমপ্লেক্স ময়দানে সুলতানুল হিন্দ হযরত খাজা গরীবে নেওয়াজের ৮০০তম সালানা ওরশ শরীফ উদ্যাপন উপলক্ষে আশেকানে গরীবে নেওয়াজ পরিষদের ব্যবস্থাপনায় বিশাল মিলাদুন্নবী (দ.) কন্ফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি শাহ্জাদায়ে গাউছুল আ’যম শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভান্ডারী বলেন, বিশ্বব্যাপী আজ মুসলিম জাতির উপর যে নিপীড়ন নির্যাতন চলছে, সে নির্যাতন থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় হলো আউলিয়া-ই-কেরামের আদর্শ অনুসরণ করা। তিনি বলেন উপমহাদেশের আধ্যাত্মিক সম্রাট খাজা মইনুদ্দীন চিশ্তী (র.) এর জীবনাদর্শ অনুসরণের মাঝেই মানব কল্যাণ নিহিত। অধ্যক্ষ জালালুদ্দীন আল্-কাদেরী সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বিশেষ মেহমান ছিলেন আলহাজ্ব সুফী মিজানুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য পেশ করেন সম্মেলন উদ্যাপন পরিষদের আহ্বায়ক আলহাজ্ব কবীর চৌধুরী। তকরীর করেন অধ্যক্ষ আ.ন.ম. দেলাওয়ার হোসাইন আল্-কাদেরী, মুফতী আল্লামা অছিয়ুর রহমান, আল্লামা কাজী মইনুদ্দীন আশরাফী, আল্লামা হাফেজ আনিসুজ্জামান, মাওলানা ইউনুস রেজভী, আলহাজ্ব মাওলানা ইউনুস তৈয়বী। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আলহাজ্ব মাওলানা নুর মুহাম্মদ ছিদ্দিকী। পরিশেষে সালাত-সালাম সমাপান্তে দেশ ও জাতি এবং মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ কামনা করেন মুনাজাত পরিচালনা করেন মাইজভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন আওলাদে রসুল (দ.) হযরত শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.)।
দর্পন ডেস্ক

Posted in Uncategorized | Comments Off on উপ মহাদেশের আধ্যাত্মিক সম্রাট খাজা মইনুদ্দীন চিশ্তী (রহঃ) এর ৮০০তম ওরশ শরীফ উদ্যাপন

আন্জুমান সংযুক্ত আরব আমিরাত শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত শারজা মোবারক সেন্টারে ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) মাহফিলে শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)

আন্জুমান সংযুক্ত আরব আমিরাত শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত শারজা
মোবারক সেন্টারে ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) মাহফিলে
শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)

দুনিয়ায় মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় প্রিয়
নবীর (দঃ) আদর্শ অনুসরণ করতে হবে

আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার সভাপতি ও মাইজভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.) বলেছেন, দুনিয়ায় মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার জন্যই মহান রাব্বুল আলামিন কর্তৃক করুনারসিন্ধু হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন প্রিয় নবী (দঃ)। তাঁর শুভাগমনে দুনিয়াবাসী অন্ধকার ও বর্বরতার রাজত্ব থেকে মুক্তির স্বাদ পেয়েছিল। তিনি বলেন, বিশ্বজুড়ে আজ মানুষে মানুষে হানাহানি, অস্থিরতা ও অশান্তি বিরাজ করছে। মানুষ যে আশরাফুল মখলুকাত তথা সৃষ্টির সেরা জাতি এই বোধটুকু পর্যন্ত আজ অনেকের মাঝে লুপ্ত প্রায়। ফলে সমগ্র দুনিয়ায় আজ অশান্তি, অবক্ষয় ও নৈরাজ্যে মানবতার নিত্য আহাজারি চলছে। এই অবক্ষয়, নৈরাজ্য ও অশান্তি থেকে মুক্তি পেতে এবং বিশ্বব্যাপী মানুষের শান্তি প্রতিষ্ঠায় ও স্বাভাবিক জীবনের নিশ্চয়তা বিধানে প্রিয় নবীর (দঃ) আদর্শ অনুসরণ করার বিকল্প নেই। ত্বরীক্বায়ে মাইজভান্ডারীয়ার মহাত্মারা বিশেষ করে আল¬ামা শায়খূল ইসলাম শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.)। এ পথেই মানুষকে উজ্জীবিত করেছেন বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন। তিনি আরও বলেন প্রবাসী বাংলাদেশীদের কষ্টার্জিত টাকায় দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। তাই প্রবাসী বাংলাদেশীদের নিরাপত্তা ও কল্যাণে আরও আন্তরিক হওয়ার জন্য তিনি বাংলাদেশ দুতাবাস সহ বাংলাদেশ সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার উদ্যোগে শারজা মোবারক সেন্টারের বিশাল হল রুমে ১৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার আয়োজিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) মাহফিলে হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.) প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন আন্জুমান ইউ. এ. ই ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জনাব আব্দুল কুদ্দুস। বিশেষ অতিথি ছিলেন আন্জুমান কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি জনাব শফিউল আলম তালুকদার, আন্জুমান শারজা শাখার সভাপতি খলিফা মুহাম্মদ আফতাব উদ্দিন, আন্জুমান ইউ. এ. ই অর্থ সম্পাদক মুহাম্মদ আব্দুল মান্নান, আন্জুমান সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ খোরশেদ। ঈদে মিলাদুন্নবীর (দঃ) তাৎপর্য ও সুন্নিয়তের দর্শনের ওপর অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আবু ছালেহ আলকাদেরী, মাওলানা আনোয়ার হোসাইন, হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ জহির উদ্দিন, জনাব মুহাম্মদ কামাল উদ্দিন, মুহাম্মদ হারুন, মুহাম্মদ নাজিম, মুহাম্মদ পারভেজ, আন্জুমান ইউ. এ. ই তথ্য সম্পাদক মুহাম্মদ পলাশ মাইজভান্ডারী সহ আন্জুমান ইউ. এ. ই বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। পরে সালাত-সালাম শেষে মুসলিম মিল¬াতের কল্যাণ, বিশ্বশান্তি, প্রবাসীদের শান্তি -সমৃদ্ধি ও দেশ-জাতির ওপর আল¬াহর রহমত কামনায় মুনাজাত পরিচালনা করেন হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)। বিপুল সংখ্যাক প্রবাসী বক্তজনতা মাহফিলে অংশ গ্রহন করেন। পরে সবার মাঝে তবারুক বিতরণ করা হয়।

Posted in Uncategorized | Comments Off on আন্জুমান সংযুক্ত আরব আমিরাত শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত শারজা মোবারক সেন্টারে ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) মাহফিলে শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)

সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী বাংলাদেশী ও আন্জুমান নেতা কর্মীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)

সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী বাংলাদেশী ও আন্জুমান নেতা কর্মীদের সংবর্ধনা
অনুষ্ঠানে শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)

প্রবাসীদের কল্যাণ ও চাকুরীর নিরাপত্তা বিধানে
সংশি¬ষ্টদের দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে হবে

সংযুক্ত আরব আমিরাতে সফরত আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি ও মাইজভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন হযরতুলহাজ্ব শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী ওয়াল হোসাইনী আল্-মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ.) কে প্রবাসী বাংলাদেশী ও সংযুক্ত আরব আমিরাত শাখার আন্জুমানের উদ্যোগে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। ২২ এপ্রিল ইউ. এ. ই’র আলাইনের একটি হোটেলে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হযরত সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী বলেন, দেশের পরিবার পরিজনের মায়া ত্যাগ করে ব্যাকারত্বের অভিশাপ গুচাতে ও পরিবারের সুখ শান্তির আশায় প্রবাস জীবন কাটান লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশী। প্রবাসীদের দুঃখ কষ্ট লাগব ও চাকুরীর নিরাপত্তা দেওয়া সরকার সহ সংশি¬ষ্টদের মানবিক দায়িত্ব। এ দায়িত্ব পালনে অবহেলার সুযোগ নেই বলে তিনি উলে¬খ করেন। হুজুর কেবলা আরো বলেন লক্ষ-লক্ষ প্রবাসীর শ্রম ও ঘামের বিনিময়ে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে অবদান রাখছে। তাই প্রবাসীদের সুখ শান্তি নিশ্চিত করার দিকে সবাইকে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী প্রবাসীদেরকে হালাল উপায়ে মেহনত করে জীবন যাপনের পরামর্শ দেন এবং দেশের ভাবমর্যাদা ক্ষুন্ন হয় এমন কাজ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান। সুন্নীয়তের উপর প্রতিষ্ঠিত থেকে মাইজভান্ডারী শান্তি ও কল্যাণের দর্শন সবখানে ছড়িয়ে দিতে প্রবাসীদের বিশেষ ভূমিকা রাখতে হবে বলে তিনি উলে¬খ করেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আন্জুমান ইউ. এ. ই’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খলিফা মুহাম্মদ আব্দুল কুদ্দুস। বিশেষ অতিথি ছিলেন আন্জুমান কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক জনাব মুহাম্মদ শফিউল আলম তালুকদার, শারজা আন্জুমান সভাপতি খলিফা আফতাব উদ্দীন, ইউ. এ. ই আন্জুমান সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ জাবেদুল আলম জাফর প্রমুখ। আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন- আন্জুমান আলাইন শাখার সভাপতি মুহাম্মদ সেলিমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আব্দুল জব্বার, আলাইন শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মুরাদ খান, জনাব আহমেদুর রহমান, মুহাম্মদ আবুল বশর, আলহাজ্ব ফজল করিম, আলাইন আন্জুমান সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ মজিবুর রহমান প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মুহাম্মদ জসিম উদ্দীন। উলে¬খ্য হুজুর ক্বেবলা ইউ. এ. ই. আন্জুমানের আমন্ত্রণে গত ১৭ এপ্রিল মঙ্গলবার ৮ দিনের সফরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজায় গমন করেন। সেখানে তিনি শারজা, আলাইন, দুবাইসহ বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকটি মাহফিলে যোগদান করেন। তিনি ২৬ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দেশে ফিরে চট্টগ্রাম ফটিকছড়ি মাইজভান্ডার দরবার শরীফে অবস্থান করবেন বলে জানান। বিপুল সংখ্যক প্রবাসী ও আন্জুমান নেতা কর্মী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগদান করেন।

Posted in Uncategorized | Comments Off on সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী বাংলাদেশী ও আন্জুমান নেতা কর্মীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)