মহানবী (দ.), ইসলাম ও কোরআন অবমাননাকারী ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ঠকারীরা সমগ্র মানবতার শত্র“। এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে-

মহানবী (দ.), ইসলাম ও কোরআন অবমাননাকারী ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ঠকারীরা সমগ্র
মানবতার শত্র“। এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে-
-সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ)।

৭ অক্টোবর-১২ রবিবার “আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়া”র উদ্যোগে হাজার-হাজার ধর্মপ্রাণ মানুষ আমেরিকায়-ফ্রান্সে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াছাল্লাম ও ইসলামকে অবমাননা করে চলচ্চিত্র নির্মাণ ও ব্যঙ্গ চিত্র প্রকাশের প্রতিবাদ এবং রামু-উখিয়া-পটিয়ায় সাম্প্রদায়িক সংঘাতের সাথে জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব থেকে মতিঝিল শাপলা চত্বর পর্যন্ত বিশাল মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে।

চট্টগ্রাম মাইজভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন ও “আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়া”র সভাপতি শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ) এতে নেতৃত্ব দেন। তিনি বলেন বাংলাদেশ বিশ্ববাসীর কাছে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ক্ষেত্রে একটি মডেল। হাজার বৎসর ধরে এখানে সকল ধর্ম বিশ্বাসীরা শান্তি ও সম্প্রীতির মধ্য দিয়ে বসবাস করে আসছে। কক্সবাজার রামু-উখিয়া ও পটিয়ার বৌদ্ধ- হিন্দু মন্দিরে যারা নৃশংস হামলা করেছে তারা কেউ মুসলমান নন, তাদের বড় পরিচয় তারা দুর্বৃত্ত, মানবতার দুশমন। তিনি বলেন এ ইস্যুকে রাজনীতির রূপ না দিয়ে বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য অক্ষুন্ন রাখতে এবং জাতীয় স্বার্থে সরকার -বিরোধী দলকে ঐক্যমত্যে পৌঁছাতে হবে। সকলে মিলে অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, মাইজভান্ডারী মহাত্মারাসহ আউলিয়া কেরামের আদর্শই হচ্ছে মানুষে-মানুষে ঐক্য ও সম্প্রীতি বজায় রাখা, সম্প্রীতির মধ্য দিয়ে সবাই বসবাস করা আর এটাই হচ্ছে অলীগণের শিক্ষা। তিনি হিংসা, বিদ্বেষ, হানাহানি ও সংঘাতময় আবহ থেকে পরিত্রাণ পেতে আউলিয়ায়ে কেরামের শান্তি-সাম্প্রীতির নীতিতে সকলকে উজ্জীবিত হবার আহবান জানান । সংখ্যালঘুদের জান মালের নিরাপত্তা দেয়া সরকারের পাশাপাশি সবার নৈতিক দায়িত্ব বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ইসলাম, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াছাল্লাম ও কুরআনের অবমাননা এবং ধর্ম নিন্দা বন্ধে জাতিসংঘ, আরবলীগ ও ও.আই.সিকে জরুরী অধিবেশন ডেকে কঠোর আইন প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়ন করার উপর তিনি গুরুত্ব আরোপ করেন। হযরত সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ) ইসলাম বিদ্বেষী যে কোন অৎপরতার বিরুদ্ধে বিশ্ববাসী ও বিশ্ব নেতৃত্বকে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানান।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে জাতীয় প্রেস ক্লাব অডিটরিয়ামে ‘‘ইসলামের ভিত্তিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি’’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাবি দর্শন বিভাগের অধ্যাপক ডঃ আনিসুজ্জামান, ঢাবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের চেয়ারম্যান ডঃ আখতারুজ্জামান, ঢাবি ইসলামিক স্ট্যাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ডঃ অ.ন.ম রইছ উদ্দিন, আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়ার নেতৃবৃন্দ আলহাজ্ব মোঃ ইকবাল, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব কবির চৌধুরী, সহ-সভাপতি এডভোকেট ওয়াজি উদ্দিন মিয়া, কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক খলিফা আলমগীর খান, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট জালাল আহমদ, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমিন ভূঁইয়া, মাওলানা বাকী বিল্লাহ আজহারী, অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা গোলাম মুহাম্মদ খান সিরাজী, মুফতি ছালেহ সুফিয়ান ফরহাদাবাদী প্রমুখ।

This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

No Comments