পাবনা জেলার বেরা, দত্তকান্দিতে এক পবিত্র ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

“মাইজভান্ডারী ত্বরীক্বার প্রেমবাদ নীতি অনুসরণ করে ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে শান্তি শৃংখলা প্রতিষ্ঠিত করা সম্ভব” -পাবনা জেলার বেরা উপজেলার দত্তকান্দিতে ওয়াজ মাহফিলে
মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)

গত ২৫ মে’২০১২ ঈসাব্দ, জুমা’বার পাবনা জেলার বেরা, দত্তকান্দিতে এক পবিত্র ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন দরবারে গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারীর সাজ্জাদানশীন, আওলাদে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, মুরর্শিদে বরহক, হযরত মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)।

হুজুর ক্বেবলা কুরআন পাকের উদৃতি দিয়ে বলেন “ইয়া আইউহাল্লাজীনা আমানুত্তাকুল্লাহা ওয়া কূনূ মায়াস সাদেক্বীন” অর্থাৎ হে ঈমানদারগণ তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং আল্লাহর আওলিয়া-এ-কেরামের সঙ্গ লাভ কর। অর্থাৎ আল্লাহ্ পাককে যথাযথভাবে ভয় করে আল্লাহর সান্নিধ্য অর্জনের জন্য প্রথম সোপন হলো কামেল মুরর্শিদ অলি-আল্লাহর সঙ্গলাভ করা।

তিনি আরো বলেন আমাদের বিরাট সৌভাগ্য বাংলার জমিনে ইমামূল আওলিয়া হযরত গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারী শুভজন্ম লাভ করেছেন এবং ত্বরীক্বায়ে মাইজভান্ডারীয়ার প্রবর্তন করেছেন। বাংলার জমিনে প্রবর্তিত একমাত্র ত্বরীক্বা হলো ত্বরীক্বায়ে মাইজভান্ডারীয়া। সমসাময়িক কালে দেশের প্রসিদ্ধ আলেম ওলামাগণ এ ত্বরীক্বার অনুসারী ছিলেন। মানব প্রেমই এ ত্বরীক্বার মূল শুর তাই আমরা হযরত গাউছুল আ’যম মাইজভান্ডারীর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে তাঁর প্রেমবাদ নীতি অনুসরণ করে ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে শান্তি ও শৃংখলা প্রতিষ্ঠিত করা সম্ভব বলে তিনি উল্লেখ করেন।

পরিশেষে মীলাদ কেয়াম ও মুনাজাতের মাধ্যমে মাহফিলের সমাপ্তি হয়।
সুফি দেস্ক্

This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

No Comments